সর্বশেষ সংবাদ
রোহিঙ্গাদের নিয়ে জাতিসংঘে বৈঠক করবে বাংলাদেশ-চীন-মায়ানমার পুরুষদের ঘরে ডেকে এনে ‘নগ্ন’ করে ছবি তুলে ভয় দেখিয়ে মোটা অংকের অর্থ আদায়, আটক ৪ লক্ষ্মীপুরে পরিবারের সদস্যদের বেঁধে রেখে দুই বোনকে ধর্ষণ! প্রথম নারী সংবাদ পাঠিকা পেল সৌদি বাবার বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ কন্যার! শ্বশুরকে গাছে বেঁধে রেখে পুত্রবধূকে নগ্ন করে মারধর ও যৌনাঙ্গে লঙ্কার গুঁড়ো দিয়ে নারকীয় অত্যাচার! আওয়ামী লীগ আগেই জনগণকে ছেড়ে দিয়েছে: রিজভী পাঁচ দিনের সফরে কাল কিশোরগঞ্জ যাচ্ছেন রাষ্ট্রপতি এক দশক ধরে বাংলাদেশের অর্থনীতি সাবলীল গতিতে এগিয়ে চলছে: অর্থমন্ত্রী ঋণের সুদের টাকা দিতে না পারায় ছাত্রদল নেতা লাথিতে গৃহবধূর গর্ভপাত!
হোম / ভিন্ন জগৎ / সরিষা ফুলের অপরূপ সৌন্দর্য,প্রকৃতি প্রেমিদের উপচে পড়া ভীড়
received_2039820209596152

সরিষা ফুলের অপরূপ সৌন্দর্য,প্রকৃতি প্রেমিদের উপচে পড়া ভীড়

মোঃ শিফাত মাহমুদ ফাহিম(ভ্রাম্যমাণ)প্রতিনিধি:

প্রকৃতিতে যেনো বসন্ত লেগেছে, অথচ এখন পৌষের হাঁড় কাপানো ভরা শীত।
বাংলাদেশের ইতিহাসের শ্রেষ্ঠ শীত এই সময়, শীতের তীব্রতা অনেক বেশি এ সময় সর্ব নিম্ন তাপ মাত্রা ধারণ করা হয়েছে ২.০৫ গ্রিডি সে.স।

চারদিকে সাদা কুয়াশা আর ধূলা বালি মাখা ধূসর সারা প্রান্তর।তবুও হালকা রৌদ্রের ঝিলিকে হলুদের আহ্বান।

সব কিছু মিলে,প্রকৃতিক এই দৃশ্য দেখে মনে হয় আজ যেনো রূপকার রাজকুমারীর গায়ে হলুদ।
সবাই দল বেঁধে এসেছে কণের গায়ে হলুদ পড়াতে।

এসেছে প্রজাপতি,মৌমাছি, হলুদিয়া,নীলরাঙ্গা সহ রূপকথার হলুদের রাজ্যের সকল প্রজারা।
সবাই যেনো হুমড়ে দিয়ে পড়েছে হলুদের উপর,কণের গায়ে হলুদ স্পর্শ করার জন্য।
বেলা বাড়ার সাথে সাথে রোদের তীব্রতাও একটু বাড়ছে।

ইসঃ মন মাতানো, হৃদয় রাঙ্গানো কি সরিষা ফুলের কি ঝাঁঝালো ঘ্রাণ.?

শীতের বাতাসে অন্য ফুলের ততোটা ঘ্রাণ পাওয়া যায় না, সরিষা ফুল ছাড়া।সরিষা ফুলের পাগল করা ঘ্রাণ যেনো অন্তরের অন্তরালে মনের অজান্তে খুব নিবিড় ভাবে আঘাত করে তা সয়ে থাকা বড় দায়।
বিজ্ঞানীরা,সরিষা ফুলের ঘ্রাণ কে বায়ু বিশুদ্ধ করনের মধ্যেম বলে বিবেচিত করেছে।
সরিষা ফুলের ঘ্রাণ মানুষের ফুসফুসের উপকার করে।তাই,এই শীতে ঘরে বসে না থেকে,শত ব্যস্ততাকে একটু ছুটি দিয়ে দিগন্ত জোড়া হলুদের রাজ্যে মিশে জান,না একদিন।

এখানে এসে দেখবেন সবাই ব্যস্ত।  কেউ-কারো দিকে তাকানোর সময় পাচ্ছে না। কৃষকরা ব্যস্ত সরিষা পরিচর্যায় ও ঘরে তোলার কাজে,আর মৌমাছিরা ব্যস্ত  ফুলে ফুলে ঘুরে মধু অহরণের। আর একটু চোখ বুলালেই,আপনি দেখবেন নীলরঙা ও রঙের বে-রং এর প্রজাপতিতে ভরে উঠেছে সরিষা ক্ষেত।
প্রজাপতি গুলোর লাল নীল বর্ণের ডানা ঝাপটানো আপনার মনে জাগিয়ে তুলবে নবতরণ এক অনাবিল আনন্দ।

আর নিয়ে যাবে সীমাহীন শান্তির দ্বার প্রান্তে।এখনে প্রজাতিরা আসে বিশ্রাম নিতে। সারাদিন নিরালস্য পরিশ্রম করার পর সরিষা ফুলের মন মাতানো ঘ্রাণ তাদের আকৃষ্ট করে। তাই তারা ছুটে আসে সরিষা ক্ষেতে বিশ্রাম নিয়ে ক্লান্তি দূর করার জন্য। কেউ বিশ্রাম নেই ফুলে, কেউ পাতায়, কেউ গোড়ায়।
আর এখানেই ঘটে তাদের বিপত্তি।

এরি মাঝে হাজির হয়ে যায় প্রজাপতি খাদকের দলেরা।ঘাপটি মেরে বসে থাকে তারা,কখন যেনো চোখের পলকেই ঠুকুর মেরে তুলে নিয়ে যায় লাল, নীল, হলদে, সাদা ডানা কাটা অপরূপ সৌন্দর্যের অধিকারী প্রজাপতিদের।

এখানে প্রজাপতি আছে বলে,ফিঙ্গে, শালিক,দোয়েল,কোয়েল,হলদে পাখির জন্য সৃষ্টি হয় উৎসব মৌখর পরিবেশ।

আপনি এখানে এসে যদি একটু অপলক দৃষ্টিতে চোখ বুলিয়ে দেখেন, তাহলে,আপনার মনে হবে সরিষা ফুল যেনো মানুষ,পখ-পখালী, প্রজাপতি ইত্যাদি সকলের মিলন মেলার এক মহা স্থান।
সবাই যেনো একিই বিন্তে গাঁথা,কেউ কাউকে ছাড়া নয়।

এখানে অসংখ্য প্রজাপতি পাখি গুলোর প্রধান খাবার, আর তারা উড়ে বেঁডাচ্ছে একেবারে পাখিদের নাগালেই।

শুধু প্রজাপতিই নয়,এখানে আছে নাম, না জানা হাজারও পোকামাকড় কোনটা লাল, কোনটা নীল,কোনটা হলুদ, কোনটা সাদা,কোনটা ধূসর কালো বর্ণের।

দেখা যায়,এরি মাঝে পিঁপড়ারাও এসেছে সারি বেঁধে ফুল তুলতে সব কিছু মিলে এ যেনো সৌন্দর্যের,ঐশ্বর্যের, রূপকথার গল্প।

এই সময় আপনি,সরিষা ক্ষেতের আইল ধরে যদি, একটু হেঁটে বেড়ান তাহলে রূপকাথার রাজ্যর সন্ধান পেয়ে যাবেন।

আবার এরি মাঝে আপনি, প্রকৃতিক জীবনের অনেক মুহূর্তের সন্ধানও পেয়ে যাবেন। শীতে শুকিয়ে এসেছে নদী, নালা, খালবিল, দেখা নেই কলমি ফুলের। আপনি যদি,একটু লক্ষ করেন তাহলে এরি মাঝে চোখে পড়বে লাউ,কুমড়া,শীম,ঝিঙ্গে ইত্যাদি এসব সবজির পাগল করা হাঁসি। পাখিদের জ্বালা থেকে রেহায় পেতে কৃষকদের তৈরী করা কাকদুয়া আপনার,মনে সৃষ্টি করবে এক নতুন নব জাগরণের।

এখান কার দিগন্ত জোড়া সরিষা ক্ষেত, হলুদের আহ্বান মনো-মুগ্ধকর সরিষা ফুলের ঘ্রাণ ,শালিক, পানকৌড়ি, ফিঙ্গে, প্রজাপতি, পোকামাকড়, লাউ, ঝিঙ্গের হাঁসি সব কিছু মিলে এই সৌন্দর্যের ঐশ্বর্য ক্ষণিকের জন্য হলেও আপনাকে,মনে করিয়ে দিবে কাজী নজরুল ইসলামের-পাখি সব করে রব এর কথা, রবীন্দ্রনাথের – আমার সোনার বাংলার কথা,কায়কোবাদের- জন্মভূমির কথা,পল্লী কবি জসীম উদ্দিনের-গ্রাম বাংলার কথা।

গ্রাম বাংলার এমন অপরূপ দৃশ্য, হলুদের আহ্বান,পখ-পখালীদের মিলন মেলা, প্রজাপতির উড়ে বেড়ানো,মৌমাছির ক্লান্তি হীন ছুটে চলা দেখতে, ইট পাথরের নগরী ছেড়ে ছুটির দিনে সকল ব্যস্ততা কে বিদায় জানিয়ে, একটু ছুটে আসুন না,প্রকৃতির এমন সৌন্দর্যের সাথে মিশে যেতে গাজীপুর জেলার কোনাবাড়ি এলাকার সরিষার ক্ষেত গুলোর মাঝে।

কথা দিলাম,আপনার শত পাষাণ হৃদয়ও বাংলা মায়ের এই রূপের প্রেমে পড়ে যাবে।
আর প্রাণ খুলে গাইতে মন চাইবে,একি অপরূপ রূপমা তোমার, এরি নাম পল্লী জননী…….

আরও দেখুন

image

উৎসুক জনতার অনুরোধ রাখতে খেয়ে ফেলল জীবিত সাপ! (ভিডিও)

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: মহীপাল সিংহ, বয়স ৪০। ছিলেন মাদকাসক্ত। মদ খেলে বেসামাল অবস্থায় তার হাতে ধরা ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Facebook