হোম / জাতীয় / বিনা বিচারে বন্দি জবেদকে ২০ লাখ টাকা কেন ক্ষতিপূরণ নয়: হাই কোর্ট
142165_1

বিনা বিচারে বন্দি জবেদকে ২০ লাখ টাকা কেন ক্ষতিপূরণ নয়: হাই কোর্ট

RUBEL রেজাউল হোসেন রুবেল :-


উচ্চ আদালতের খালাসের রায়ের ১৩ বছর পর মুক্তি পাওয়া সাতক্ষীরার জবেদ আলী বিশ্বাসের মৌলিক অধিকার লঙ্ঘিত হওয়ায় কেন তাকে ২০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে না- তা জানতে চেয়ে রুল দিয়েছে হাই কোর্ট। এক রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি মো. ইকবাল কবিরের হাই কোর্ট বেঞ্চ মঙ্গলবার এই রুল জারি করে। পাশাপাশি, জবেদ আলীকে বেআইনিভাবে কারাবন্দি রাখায় বিবাদীদের নিষ্ক্রিয়তা ও অবহেলা কেন সংবিধানের ৩১, ৩২ ও ৩৫ ও ৩৬ অনুচ্ছেদের পরিপন্থি ঘোষণা করা হবে না- তাও জানতে চাওয়া হয়েছে রুলে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, আইন সচিব, হাই কোর্টের রেজিস্ট্রার, সাতক্ষীরার অতিরিক্ত দায়রা জজ আদালত-৩ এর তৎকালীন বিচারক, আইজিপি (প্রিজন) ও সাতক্ষীরার জেল সুপারকে চার সপ্তাহের মধ্যে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে। খালাসের রায়ের ১৩ বছর পর কারামুক্ত হলেন জবেদ আলী শিরোনামে গত ৩ মার্চ একটি জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত প্রতিবেদন যুক্ত করে চিলড্রেনস চ্যারিটি বাংলাদেশ ফাউন্ডেশন গত ১৯ মে এই রিট আবেদন করে। খালাসের পরও ১৩ বছর বিনাবিচারে আটক রাখার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে ক্ষতিপূরণের জন্য নির্দেশনা চাওয়া হয় ওই রিট আবেদনে। রিট আবেদনকারী আইনজীবী ব্যারিস্টার আবদুল হালিম নিজেই আদালতে শুনানি করেন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মোতাহার হোসেন সাজু। আবদুল হালিম পরে বলেন, নিম্ন আদালত ২০০১ সালে এক মামলায় জবেদ আলীকে যাবজ্জীবন কারাদ- দেয়। জবেদ আলীর করা আপিলে ২০০৩ সালে হাই কোর্ট তাকে খালাস দেয়। কিন্তু সাতক্ষীরার তখনকার অতিরিক্ত দায়রা জজ খালাসের আদেশ কারাগারে না পাঠানোয় জাবেদের মুক্তি আটকে থাকে ১৩ বছর। চলতি বছর ২ মার্চ তিনি মুক্তি পেলে বিষয়টি খবরের শিরোনামে আসে। সংবিধানের ৩১, ৩২ ও ৩৫ ও ৩৬ অনুচ্ছেদের মৌলিক অধিকাল লঙ্ঘন হয়েছে দাবি করে এই রিট আবেদন করা হয়েছে বলে জানান এই আইনজীবী। সংবিধানের ৩১ অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, আইনের আশ্রয় পাওয়া প্রত্যেক নাগরিকের অবিচ্ছেদ্য অধিকার। আইনের বাইরে গিয়ে এমন কোনো ব্যবস্থা নেওয়া যাবে না, যাতে কোন ব্যক্তির জীবন, স্বাধীনতা, দেহ, সুনাম বা সম্পত্তির হানি ঘটে। আইন বহির্ভূতভাবে কাউকে তার জীবন ও ব্যক্তি-স্বাধীনতা থেকে বঞ্চিত করা যাবে না, বলা হয়েছে ৩২ অনুচ্ছেদে। সংবিধানের ৩৫ অনুচ্ছেদে দ- দেওয়ার ক্ষেত্রে আইনের প্রয়োগ, বিচার পাওয়ার অধিকার, জবানবন্দি গ্রহণ ও নিষ্ঠুর, অমানুষিক বা লাঞ্ছনাকর দ- দেওয়ার বিষয়ে বিধিনিষেধ সম্পর্কে বলা হয়েছে। আর ৩৬ অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে নাগরিকদের চলাফেরা, বসবাস ও দেশত্যাগ বা দেশে ফেরার অধিকারের বিষয়ে।

আরও দেখুন

Li-Mie-Khang

উন্নয়ন সহযোগিতা বাড়াতে আগামী রবিবার ঢাকায় আসছেন কোইকা প্রেসিডেন্ট

সিনিয়র রিপোর্টার: বাংলাদেশের সঙ্গে উন্নয়ন সহযোগিতা জোরদারের বিষয়ে আলোচনা করতে আগামী রবিবার ঢাকায় আসছেন কোরিয়ার ...

Leave a Reply

%d bloggers like this: