সর্বশেষ সংবাদ
প্রবাসী স্বামীর অনুপস্থিতিতে যুবকের সাথে শারীরিক সম্পর্ক, মেয়ের দিকেও লোলুপ দৃষ্টি বাধ্য হয়ে থানায় প্রবাসীর স্ত্রী গৌরনদীতে দু’পক্ষের সংঘর্ষ, নারীসহ আহত ৮ গোমস্তাপুরে মাদকসহ আটক চার তাইওয়ানে ৬.০ মাত্রার ভূমিকম্প বাবাকে নতুন জীবন দিলেন ১৯ বছরের মেয়ে দুর্যোগ-দুর্ঘটনা মোকাবেলায় ব্যক্তিগত পর্যায়েও সচেতন হতে হবে : প্রধানমন্ত্রী আগামী দিনে সবুজ ও পরিষ্কার শক্তির উৎস সৌরশক্তি : পরিকল্পনামন্ত্রী দারিদ্র বিমোচন সহায়ক বাজেট প্রণয়নের আহ্বান: স্পিকার নারীর প্রতি সহিংসতা রোধে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অভিযোগ বক্স রাখার সুপারিশ গ্রেপ্তারকালে পেরুর সাবেক প্রেসিডেন্টের আত্মহত্যা
হোম / ক্রাইম সংবাদ / বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে যৌন সম্পর্ক ধর্ষণের শামিল: সুপ্রিম কোর্ট
rape-sm-20180624133222

বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে যৌন সম্পর্ক ধর্ষণের শামিল: সুপ্রিম কোর্ট

অনলাইন ডেস্ক:

বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে যৌন সম্পর্ক স্থাপন করা ধর্ষণের শামিল এবং তা নারীর সম্মানের প্রতি চরম আঘাত। গতকাল এক মামলার রায় ঘোষণা করতে গিয়ে এই মন্তব্য করেছে ভারতের সুপ্রিম কোর্ট।

বিচারপতি এল নাগেশ্বর রাও এবং বিচারপতি এম আর শাহের সুপ্রিম কোর্টের বেঞ্চ বলেন, ধর্ষণ নারীর মর্যাদা ও সম্মানে চূড়ান্ত আঘাত হানে। অভিযুক্ত যদি বিয়ে না করে সেই নারী ও তাঁর পরিবারের যত্নও নেয়, তবু তার অপরাধ অস্বীকার করা যায় না।

এই প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে আদালত জানিয়েছেন, এই ধরনের ঘটনা ইদানীং আধুনিক সমাজে ক্রমেই বেড়ে চলেছে।

ছত্তিশগড়ের বাসিন্দা এক চিকিৎসকের বিরুদ্ধে ২০১৩ সালে ধর্ষণের অভিযোগ এনে মামলা দায়ের করেন এক নারী। সেই মামলার শুনানিতে বলা হয়, ২০০৯ সাল থেকে অভিযুক্তের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল বিলাসপুরের কোনি অঞ্চলের বাসিন্দা ওই নিগৃহীতার। অভিযোগ, মহিলাকে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে শারীরিক সম্পর্ক তৈরি করে ওই চিকিৎসক। সেই সম্পর্কের কথা পরস্পরের পরিবার জানত বলেও মামলার শুনানিতে জানা গিয়েছে।

এদিকে ওই মহিলার সঙ্গে সম্পর্ক থাকাকালীনই অন্য এক নারীর সঙ্গে বিয়ে পাকা হয়ে যায় অভিযুক্তর। প্রতিশ্রুতি ভেঙে তাই সেই মহিলাকেই বিয়ে করে অভিযুক্ত। ঘটনার জেরে চিকিৎসকের বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলা দায়ের করেন তার প্রাক্তন প্রেমিকা।

মামলায় অভিযুক্ত চিকিৎককে ধর্ষণের দায়ে দোষী সাব্যস্ত করে দশ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেয় ভোপাল হাইকোর্ট। সেই রায়ের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করেন চিকিৎসক। সুপ্রিম কোর্টের বেঞ্চ জানান,  মামলার সাক্ষ্য প্রমাণে স্পষ্ট হয়েছে যে, মামলাকারীকে কখনই বিয়ে করতে চায়নি অভিযুক্ত। বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে তার সঙ্গে যৌন মিলনই ছিল তার মুখ্য উদ্দেশ্য।

সুপ্রিম কোর্টের নজরে এই ঘটনা ধর্ষণ ছাড়া কিছু নয়। তবে দোষী চিকিৎসকের সাজা কমিয়ে সাত বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছে শীর্ষ আদালত।
সূত্র: এই সময়

আরও দেখুন

alllan

গ্রেপ্তারকালে পেরুর সাবেক প্রেসিডেন্টের আত্মহত্যা

অনলাইন ডেস্ক: পেরুর সাবেক প্রেসিডেন্ট অ্যালান গার্সিয়া আত্মহত্যা করেছেন। ঘুষ গ্রহণের অভিযোগে তদন্ত চলাকালে পুলিশ ...

Leave a Reply

%d bloggers like this: